ঢাকা: আগামী এক বছরের মধ্যে ঢাকার সব রাস্তায় পাঁচ হাজার ক্যামেরা এবং ১ হাজার ৩০৬টি রাস্তার উন্নয়ন কাজ করা হবে। একইসঙ্গে ড্রেন সংস্কার এবং সব রাস্তায় লাইট লাগানোর কাজও চলবে। নগর ঢাকার উন্নয়নে চলমান যেসব প্রকল্পগুলো আছে সেসব শেষ হবে আগামী ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যেই।

এ কথা জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক। সোমবার (৮ মে) ঢাকার গাবতলী-আদাবর এলাকার গৈদারটেক-মনসুরাবাদ সংযোগ সড়ক ও ব্রিজ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন তিনি।

মেয়র বলেন, উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে মেয়রের হয়তো নাম হয়, কিন্তু কাজ করেন আওয়ামী লীগের নেতারা। আমি রাজনৈতিক শক্তির বলেই কাজ করি। তাই আমার কাজের যে অংশটা আপনারা দেখতে পান, সেটার পেছনে কাজ করে রাজনৈতিক শক্তি।

আনিসুল হক বলেন, আমি যে কাজগুলো করছি, সেটা জনগণের জন্য করেছি। এ কাজগুলো করেছি এজন্য, পাঁচ বছর পর যখন থাকবো না, তখন যেন আপনারা আমাকে মিস করেন। গৈদারটেক-মনসুরাবাদ সংযোগ সড়ক ও ব্রিজ উদ্বোধনের পর মোনাজাত করছেন মেয়র আনিসুল হকসহ অতিথিরা। ছবি: আনোয়ার হোসেন রানা
গৈদারটেক-মনসুরাবাদ সংযোগ সড়ক ও ব্রিজ উদ্বোধনের পর মোনাজাত করছেন মেয়র আনিসুল হকসহ অতিথিরা। ছবি: আনোয়ার হোসেন রানা

গত ২ বছরে ৬৪২টি রাস্তার উন্নয়ন কাজ হয়েছে জানিয়ে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, গুলশানের ফুটপাতগুলো এমনভাবে করা হচ্ছে যেন অন্ধরা কারও সাহায্য ছাড়াই হাঁটতে পারে। বিদেশি অ্যাম্বেসিগুলো ভবন তৈরি করে আমাদের ফুটপাত এমনভাবে দখল করেছিল, কেউ চলাচল করতে পারছিল না। আমরা তাদের সঙ্গে আলোচনা করে ফুটপাত দখলমুক্ত করতে রাজি করিয়েছি। এরইমধ্যে অনেক অ্যাম্বেসির সামনের ফুটপাত দখলমুক্ত করা হয়েছে।

আনিসুল হক তার সিটি করপোরেশনে উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে বলেন, ঢাকার সব রাস্তায় লাইট লাগানোর জন্য গবেষণা চলছে, যেন ড্রাইভার, বয়স্ক ও শিশুদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি না হয়, তাদের চোখে যেন কোনো সমস্যা না হয়।

ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাউল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ঢাকা-১৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. আসলামুল হক, ডিএনসিসির প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আনোয়ার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনের পর ব্রিজের পশ্চিম পাশে মেয়র একটি বকুল চারা এবং দুই সংসদ সদস্য একটি করে জারুল চারা রোপণ করেন।

গৈদারটেক-মনসুরাবাদ সংযোগ সড়ক ও ব্রিজ উদ্বোধনের ফলে আদাবর, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, কল্যাণপুর, গাবতলী, শেখের টেক ও টেকনিক্যাল এলাকার মানুষদের যোগাযোগ আরও সহজতর হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ সময়: ১২১৯ ঘণ্টা, মে ০৮, ২০১৭
ইইউডি/এইচএ/

View Source PDF